অনলাইন ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?



Sharewhy.com ওয়েবসাইট এ আপনাকে অনেক অনেক স্বাগত জানাই। আপনি হয়তো ভাবছেন অনলাইন ট্রেডিং কি জিনিস এবং অনলাইন ট্রেডিং করে আয় কিভাবে করা যায়? তো আর কোন চিন্তা ভাবনা নয়, আজ আপনাদেরকে জানাবো অনলাইন ট্রেডিং সম্পর্কে এ টু জেড জানকারি, যে ট্রেডিং কি জিনিস? কিভাবে ট্রেনিং করবেন এবং অনলাইন ট্রেডিং থেকে কিভাবে মোটা টাকা আয় করবেন? সম্পূর্ণ জানকারি এই আর্টিকেলে পেয়ে যাবেন তাই আর্টিকেলটি অবশ্যই পুরোটা পড়ুন।

ট্রেডিং কি?/ অনলাইন ট্রেডিং কি?

ধরুন রোহিত নামে এক ব্যক্তির একটা ছোট্ট ব্যবসা আছে। ওই ব্যাক্তি স্মার্টফোন এবং কম্পিউটারের সঙ্গে কোন কানেকশন নেই, কিন্তু ওই ব্যক্তি শেয়ার মার্কেটে ইনভেস্টমেন্ট করেন।

তাই তিনি শেয়ার কেনা বেচার জন্য কি করেন, যেহেতু তিনি স্মার্টফোন ও কম্পিউটার চালাতে জানেন না তাই তিনি তার ব্রোকারকে ফোন করে একটি শেয়ার করার জন্য বলেন এবং ব্রোকার তার কথামতো সেই শেয়ারটি কিনে নেয়, তো এটাকে অফলাইন ট্রেডিং বলা হয়।

অন্যদিকে ধরুন রোহিতের আরেকটি বন্ধু আছে যার নাম সোহম যিনি খুবই স্মার্ট এবং তিনি স্মার্টফোন এবং কম্পিউটার খুব ভালোভাবে চালাতে জানেন। তাই তিনি ফোন ও কম্পিউটার ব্যবহার করে নিজেই ঘরে বসে অনলাইন শেয়ার কেনাবেচা করেন। যখন তার যে শেয়ারটি কিনতে মনে হয় কিনে নেয় এবং যে শেয়ারটি বিক্রি করতে মনে হয় তা বেচে দেয়।ঠিক যেমন আমরা অনলাইনে শপিং করি,অনলাইন ট্রেডিংও ঠিক সেরকম ভাবেই করা হয়।

ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?
ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?


তো অনলাইন ট্রেডিং কি? সেটা হয়তো আপনাদের এবার আপনাদের সহজ মনে হচ্ছে তাই না, আর সত্যিই অনলাইন ট্রেডিং খুবই সহজ। তো চলুন আমরা জেনে নিই অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেডিং আপনি কিভাবে করবেন।

অনলাইন ট্রেডিং কিভাবে করব?

ট্রেডিং করার জন্য সবার প্রথমে আপনাকে ডিম্যাট অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং ব্রোকারের অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। এছাড়াও আপনাকে একটি শেয়ারও বেছে নিতে হবে ট্রেডিং করার জন্য।


ডিম্যাট অ্যাকাউন্ট আপনি যে কোন ব্যাংকের মাধ্যমে খুলতে পারেন বা অনলাইনের মাধ্যমেও আপনি ডিম্যাট অ্যাকাউন্ট খুলতে পারেন। কিন্তু আপনি হয়তো ভাবছেন কোন ব্রোকারের অ্যাপ ডাউনলোড করব, দেখুন মার্কেটে অনেক ব্রোকারের অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট আছে, আপনি চাইলে যে কোন ব্রোকারের অ্যাপ ডাউনলোড করতে পারেন বা তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে ভিজিট করে অ্যাকাউন্ট বানাতে পারেন।

এরমধ্যে কিছু ব্রোকারের নাম আমি আপনাদের জানাচ্ছি Zerodha, Angel One, Motilal Oswal, ইত্যাদি। যখন আপনি ব্রোকারের মাধ্যমে ট্রেডিং করবেন তখন আপনি খুব সহজে ট্রেডিং করতে পারবেন। ব্রোকারের অ্যাপ বা ওয়েবসাইটে শেয়ারের রেট সহ প্রতিটি জানকারি, আপনি ডিটেলসে পেয়ে যাবেন।

যখন আপনি অনলাইন ট্রেডিং করবেন ওখানে শেয়ারের দাম লিস্টেড থাকবে যেটা আপনার সামনে আসবে ওই দামে আপনি শেয়ার কিনতে চাইলে কিনতে পারেন এবং বিক্রি করলে বিক্রি করতে পারেন। কিন্তু আপনি যদি মনে করেন ওই শেয়ারের দাম তখন বেশি লাগছে তো আপনি চাইলে ওই শেয়ার দুদিন, এক সপ্তাহ বা একমাস পরেও কিনতে পারেন। আর আপনি যদি শেয়ার বিক্রি করতে চান তো বিক্রিও করতে পারেন। তো এই ভাবেই অনলাইন ট্রেডিং করা হয়। এবার আপনাদের অনলাইন ট্রেডিং কি? আশা করি ক্লিয়ার হয়েছে।

ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?
ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?


অনলাইন ট্রেডিংয়ের মাধ্যমে আপনি মিউচুয়াল ফান্ড, বন্ড, কমোডিটি, কারেন্সি এইসব বিক্রির কাজও করতে পারেন। আর এসব কিছু ব্রোকারের প্লাটফর্মে লিস্টেড থাকে।

আরও পড়ুন : ক্রিপ্টোকারেন্সি কি? ক্রিপ্টোকারেন্সিতে বিনিয়োগ কিভাবে করব?

অনলাইন ট্রেডিং এর সুবিধা গুলি কি কি?

অফলাইনের থেকে অনলাইন ট্রেডিং এর সুবিধা অনেক বেশি, তো ব্যাপারটা একটা গল্পের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক।
যেমন ধরুন সুহানা একটি হাউসওয়াইফ তিনি হাউসওয়াইফ হলেও খুবই স্মার্ট এবং মোবাইল ও কম্পিউটার খুব ভালোভাবে চালাতে পারেন। তাই তিনি অনলাইন শেয়ার কেনাবেচাও শুরু করে দিয়েছেন। ধরুন সোহানা টাটার শেয়ার কিনতে চায় তাই আজ শেয়ারের রেট কত? আপট্রেন্ড ডাউনট্রেন্ড, ওই শেয়ারটা কতজন কিনতে চায়, প্রতিটি জিনিস তিনি ব্রোকারের প্লাটফর্মে দেখতে পাচ্ছেন।

তাই সুহানা ডিটেলসে জানকারি নেওয়ার পর এই ভাবেই অনলাইন শেয়ার কেনাবেচা করেন বা ট্রেডিং করেন, এবং একাউন্টের স্ট্যাটাস মেন্টেন করেন। তাই সুহানা এই ভাবেই সংসার সামলায় এবং অনলাইন ট্রেড করে। এমনকি কোথাও ঘুরতে গেলেও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তিনি অনলাইন ট্রেডিং করে থাকেন।


তাই আপনিও সুহানার মত এভাবেই অনলাইন ট্রেডিং করতে পারেন। তো সুহানার এই গল্পটি শুনে অনলাইন ট্রেডিং এর ব্যাপারটা আপনারা খুব ভালোভাবে বুঝতে পেরে গেছেন। আর সত্যিই অনলাইন ট্রেনিং খুব সহজ কিন্তু অনলাইন ট্রেডিং এর কিছু খারাপ দিকও আছে। খারাপ দিকগুলি নিজে ডিটেলসে আলোচনা করা হলো।

ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?
ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করব?

আরও পড়ুন : শেয়ার বাজার কি? শেয়ার কিনতে হয় কিভাবে?

অনলাইন ট্রেডিং এর অসুবিধাগুলো কি কি?

অনলাইন ট্রেডিং এর যেমন কিছু ভাল দিক আছে তেমন কিছু খারাপ দিকও আছে। খারাপ দিক বলতে অনলাইন ট্রেডিং অনেকটা নেশার মত আর নেশা মানুষ সহজে ছাড়তে পারে না। যেমন বিভিন্ন খারাপ জিনিসের নেশা হয় ঠিক তেমনি। তাই এই নেশা থেকে কিভাবে আপনি দূরে থাকবেন তার জন্য কিছু টিপস জেনে রাখুন। তো চলুন তার আগে একটা গল্প শুনে নেওয়া যাক।

ধরুন প্রভাস নতুন নতুন ট্রেডিং শিখেছে। আর ওর মনে হচ্ছে ট্রেডিং তো খুবই মজাদার জিনিস এবং সহজ তাই প্রভাস প্রতিদিন ট্রেডিং করে ভালই ইনকাম করছে কিন্তু মাঝে মাঝে ওর লোকসানও হতো কিন্তু ও লোকসানের ব্যাপারে কোনদিন ধ্যান দেয়নি দেয়নি। আর যখনই প্রভাস ফাঁকা পেতো বা যখনই ফ্রি থাকতো তখনই ট্রেডিং করতো। আর এর মধ্যে প্রভাসের অনেক লোকসান হয়ে যায়। তাই প্রভাস পুরনো লোকসান ভরপাই করার জন্য আবার নতুন করে ট্রেডিং শুরু করতো।


এইভাবে ওর লোকসানের পরিমাণ আরো বেড়ে যায় এবং প্রভাস এর পরিস্থিতি খুব খারাপ হয়ে যায় এবং ট্রেডিং এর জালে ও একদম ফেঁসে যায় এবং প্রচুর টাকা লোকসান হয়ে যায়, এমনকি ওর সবকিছু বিক্রি হয়ে যায়।

তাই লোভে পড়ে কখনোই ট্রেডিং করবেন না। সাঁতার শিখতে হলে আগে সুইমিংপুলে বা কম জলে সাঁতার শিখুন তারপর সমুদ্রে যাবেন। তাই ট্রেডিং করতে হলে মার্কেট ভালো করে বুঝুন, শিখুন এবং প্রয়োজন হলে তবেই ট্রেডিং করুন।

উপসংহার

তো বন্ধুরা আশা করি আপনারা ট্রেডিং কি? ট্রেডিং কিভাবে করবেন, বা ট্রেডিং থেকে কি ভাবে আয় করবেন এবং ট্রেডিং এর সুবিধা ও অসুবিধা গুলো কি কি সেগুলো খুব ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন।

তাই আবারও একবার আপনাদেরকে মনে করিয়ে দিই ট্রেডিং করার আগে শেয়ার সম্পর্কে ভালো করে জানকারি নিন,শেয়ার ভালো করে যাচাই করুন এবং প্রয়োজন বুঝে ট্রেডিং করুন। অকারনে কখনোই ট্রেডিং করবেন না বা অন্যের কথা শুনে কখনোই ট্রেডিং এ মোটা টাকা ইনভেস্ট করবেন না। সব সময় নিজের শিক্ষা ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে ট্রেডিং করুন অবশ্যই আপনি সফল হবেন।

বন্ধুরা আমরা প্রতিটি আর্টিকেল খুবই পরিশ্রম ও রিসার্চ করে আপনাদের জন্য তৈরি করি। তাই আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না, আপনাদের একটি কমেন্ট আমাদের আরো পরিশ্রম করতে উৎসাহিত করে, সবাই সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন, ধন্যবাদ।

FAQs

ট্রেডিং ব্যবসা কি

ট্রেডিং ব্যবসা হল এমন একটি ব্যবসা যার সাহায্যে আপনি শেয়ার বাজারের মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার কেনাবেচা করে আয় করতে পারবেন। তবে এই ব্যবসায় অনেক ঝুঁকিও থাকে। ট্রেডিং ব্যবসা আপনি অনলাইন ও অফলাইন করতে পারেন।

মোবাইল ট্রেডিং কি

অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শেয়ার কেনাবেচা কে মোবাইল ট্রেডিং বলা হয়। মোবাইল ট্রেডিং এর ফলে বর্তমানে শেয়ার কেনাবেচা খুবই সহজ হয়েছে।

ট্রেডিং বলতে কি বুঝায়?

ট্রেডিং ব্যবসা হল এমন একটি ব্যবসা যার সাহায্যে আপনি শেয়ার বাজারের মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার কেনাবেচা করে আয় করতে পারবেন। তবে এই ব্যবসায় অনেক ঝুঁকিও থাকে। ট্রেডিং ব্যবসা আপনি অনলাইন ও অফলাইন করতে পারেন।


Leave a Comment